হোয়াটসঅ্যাপ স্ক্রিন শেয়ারিং ফিচার: হোয়াটসঅ্যাপে স্ক্রিন শেয়ার করার ধাপে ধাপে প্রক্রিয়া

হোয়াটসঅ্যাপ স্ক্রিন শেয়ারিং ফিচার: হোয়াটসঅ্যাপে স্ক্রিন শেয়ার করার ধাপে ধাপে প্রক্রিয়া

বর্তমান সময়ে হোয়াটসঅ্যাপ একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যোগাযোগের মাধ্যম হয়ে উঠেছে। এর মাধ্যমে, আমরা শুধু আমাদের বন্ধুবান্ধব এবং পরিবারের সাথে যোগাযোগ রাখি না, এটি ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যেও ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। হোয়াটসঅ্যাপে সময়ে সময়ে নতুন বৈশিষ্ট্য যুক্ত করা হয়, যা এটিকে আরও উপযোগী করে তোলে। তেমনই একটি নতুন ফিচার হল ‘স্ক্রিন শেয়ারিং’। এই বৈশিষ্ট্যটি আপনাকে অন্য ব্যক্তির সাথে আপনার স্ক্রিন ভাগ করতে দেয়, যাতে আপনি তাদের রিয়েল-টাইমে আপনার স্ক্রিনে কী ঘটছে তা দেখাতে পারেন৷ এই নিবন্ধে আমরা জানব কীভাবে হোয়াটসঅ্যাপে স্ক্রিন শেয়ার করতে হয় এবং এর জন্য ধাপে ধাপে প্রক্রিয়া কী।

স্ক্রিন শেয়ারিং কি?

স্ক্রিন শেয়ারিং এমন একটি বৈশিষ্ট্য যার মাধ্যমে আপনি আপনার স্মার্টফোন বা কম্পিউটারের স্ক্রীন লাইভ দেখাতে পারবেন। এর মানে হল যে আপনার স্ক্রিনে যা ঘটছে, আপনি তা আপনার বন্ধু বা সহকর্মীদের সাথে রিয়েল টাইমে শেয়ার করতে পারবেন।

হোয়াটসঅ্যাপে স্ক্রিন শেয়ার করার ধাপ:

1. WhatsApp আপডেট করুন: প্রথমত, নিশ্চিত করুন যে আপনার কাছে হোয়াটসঅ্যাপের সর্বশেষ সংস্করণ ইনস্টল করা আছে। স্ক্রিন শেয়ারিং বৈশিষ্ট্য শুধুমাত্র সর্বশেষ সংস্করণে উপলব্ধ। যদি আপনার অ্যাপটি আপডেট না হয় তবে এটিকে গুগল প্লে স্টোর বা অ্যাপল অ্যাপ স্টোর থেকে আপডেট করুন।

2. একটি ভিডিও কল শুরু করুন: শুধুমাত্র ভিডিও কলের সময় স্ক্রিন শেয়ার করা সম্ভব। সুতরাং, প্রথমে আপনি যার সাথে স্ক্রিন শেয়ার করতে চান তাকে একটি ভিডিও কল করুন।

3. স্ক্রীন শেয়ারিং বোতামে ক্লিক করুন: ভিডিও কল সংযুক্ত হলে, স্ক্রিনে ‘স্ক্রিন শেয়ার’ বোতামে ক্লিক করুন। এই বোতামটি সাধারণত কল কন্ট্রোল প্যানেলে প্রদর্শিত হবে।

4. নিশ্চিতকরণ: স্ক্রিন শেয়ার বোতামে ক্লিক করার পরে, আপনি সত্যিই আপনার স্ক্রীন ভাগ করতে চান কিনা তা নিশ্চিত করার জন্য আপনাকে জিজ্ঞাসা করবে একটি পপ-আপ উইন্ডো। এই নিশ্চিতকরণ গ্রহণ করুন.

5. শেয়ার করা শুরু করুন: নিশ্চিতকরণের পরে, আপনার স্ক্রিন ভাগ করা শুরু হবে। এখন আপনার ফোনের স্ক্রিনে যা দৃশ্যমান হবে তা ভিডিও কলে অংশগ্রহণকারী অন্য ব্যক্তির কাছেও দৃশ্যমান হবে।

6. স্ক্রীন শেয়ারিং বন্ধ করা: আপনি যখন স্ক্রিন শেয়ারিং শেষ করতে চান, ভিডিও কলের কন্ট্রোল প্যানেলে দেওয়া ‘স্ক্রিন শেয়ারিং বন্ধ করুন’ বোতামে ক্লিক করুন। এটি অবিলম্বে স্ক্রিন ভাগ করা বন্ধ করবে৷

স্ক্রিন শেয়ারিং এর সুবিধাঃ

1. পেশাগত ব্যবহার: এই বৈশিষ্ট্যটি বিশেষত পেশাদারদের জন্য উপযোগী যারা মিটিং চলাকালীন উপস্থাপনা বা নথি শেয়ার করতে চান।

2. প্রযুক্তিগত সহায়তা: কেউ প্রযুক্তিগত সমস্যার সম্মুখীন হলে তারা সহজেই স্ক্রিন শেয়ার করে সাহায্য পেতে পারে।

3. শিক্ষা: শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীরা সহজেই তাদের পড়াশুনা সম্পর্কিত বিষয়বস্তু শেয়ার করতে পারে।

4. পরিবার এবং বন্ধুরা: পরিবারের সদস্য বা বন্ধুরা একে অপরের ফটো, ভিডিও বা অন্যান্য মিডিয়া ফাইলগুলি দেখাতে এই বৈশিষ্ট্যটি ব্যবহার করতে পারে।

হোয়াটসঅ্যাপ সম্পর্কে কিছু আকর্ষণীয় তথ্য:

1. বড় ইউজার বেস: বিশ্বব্যাপী হোয়াটসঅ্যাপের 2 বিলিয়নের বেশি ব্যবহারকারী রয়েছে।

2. নিরাপত্তা: হোয়াটসঅ্যাপে এন্ড-টু-এন্ড এনক্রিপশন রয়েছে, যা আপনার চ্যাট এবং কলগুলিকে সম্পূর্ণ সুরক্ষিত রাখে।

3. বিনামূল্যে পরিষেবা: হোয়াটসঅ্যাপ হল একটি বিনামূল্যের পরিষেবা যেখানে আপনি টেক্সট মেসেজ, ভয়েস কল, ভিডিও কল এবং মিডিয়া শেয়ার করতে পারবেন।

4. হোয়াটসঅ্যাপ ওয়েব: আপনি আপনার কম্পিউটারে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করতে পারেন, এই WhatsApp ওয়েব বৈশিষ্ট্যটি উপলব্ধ।

5. স্থিতি বৈশিষ্ট্য: হোয়াটসঅ্যাপের স্ট্যাটাস বৈশিষ্ট্য আপনাকে আপনার বন্ধুদের সাথে ফটো এবং ভিডিও শেয়ার করতে দেয়, যা 24 ঘন্টা পরে স্বয়ংক্রিয়ভাবে অদৃশ্য হয়ে যায়।

হোয়াটসঅ্যাপের স্ক্রিন শেয়ারিং ফিচার খুবই উপযোগী এবং সুবিধাজনক। এটি শুধুমাত্র ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য নয়, পেশাদার ব্যবহারের জন্যও অত্যন্ত উপকারী হতে পারে। উপরে প্রদত্ত পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করে, আপনি সহজেই হোয়াটসঅ্যাপে আপনার স্ক্রিন শেয়ার করতে পারেন এবং এই নতুন বৈশিষ্ট্যটির সম্পূর্ণ সুবিধা নিতে পারেন। হোয়াটসঅ্যাপ সবসময় তার ব্যবহারকারীদের জন্য নতুন বৈশিষ্ট্য নিয়ে আসে, এটির ব্যবহারকে আরও সহজ এবং কার্যকর করে। স্ক্রিন শেয়ারিংও এমন একটি বৈশিষ্ট্য, যা আপনার ডিজিটাল জীবনকে আরও সহজ এবং মজাদার করে তুলতে পারে।

– অনিমেষ শর্মা

(Feed Source: prabhasakshi.com)