স্বামীর মৃত্যুর পর রাজনীতিতে আসতে ‘বাধ্য’ হয়েছিলেন, স্মৃতির মন্ত্রক এল যাঁর হাতে…

স্বামীর মৃত্যুর পর রাজনীতিতে আসতে ‘বাধ্য’ হয়েছিলেন, স্মৃতির মন্ত্রক এল যাঁর হাতে…

নয়াদিল্লি : ১৯৯৮ সালে মৃত্যু হয় স্বামীর। তারপর কার্যত ‘বাধ্য’ হয়ে রাজনীতিতে আসেন। এরপর ধীরে ধীরে উত্থান। এবার মোদি মন্ত্রিসভায় জায়গা করে নিলেন অন্নপূর্ণা দেবী (Annapurna Devi)। পেলেন নারী ও শিশুকল্যাণ মন্ত্রকের দায়িত্ব।

জায়গা নিলেন স্মৃতি ইরানির। অমেঠী কেন্দ্র থেকে যাঁর পরাজয় এবার লোকসভা ভোটের ফলাফলে অন্যতম চর্চার বিষয় হয়ে উঠেছে। ‘প্রেস্টিজ ফাইটে’ স্মৃতির হারে কার্যত ‘মুখ পুড়েছে’ বিজেপি শিবিরের। এই পরিস্থিতিতে আজ কেন্দ্রীয় মন্ত্রক বণ্টনে দেখা যায়, একসময় স্মৃতির সামলানো মন্ত্রকের দায়িত্ব পেয়েছেন অন্নপূর্ণ দেবী। যিনি আবার ঝাড়খণ্ডে বিজেপির অন্যতম OBC মুখ। রাজনৈতিক মহল মনে করেছে, চলতি বছরেই শেষের দিকে অনুষ্ঠিত হতে চলা ঝাড়খণ্ড বিধানসভা নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে OBC ভোট ব্যাঙ্কের দিকে নজর দিয়েছে গেরুয়া শিবির। সম্ভবত সেদিকে নজর রেখেই অন্নপূর্ণা দেবীকে তুলে আনা।

সদ্য শেষ হওয়া লোকসভা ভোটে, বিজেপির টিকিটে কোদেরমা আসন থেকে জয়ী হয়েছেন অন্নপূর্ণা দেবী। ৭.৯১ লক্ষ ভোটে জিতেছেন তিনি। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন সিপিআই-এমএল-এর বিনোদ কুমার।

১৯৯৮ সালে কোদেরমায় উপনির্বাচনে জিতে তিনি রাজনৈতিক কেরিয়ার শুরু করেছিলেন। তাঁর স্বামীর মৃত্যুর পর আসনটি ফাঁকা পড়েছিল। তখন লালু যাদবের আমলে অবিভক্ত বিহারে RJD-র টিকিটে জয়ী হন তিনি। তারপর থেকে অন্নপূর্ণ দেবী চারবার বিধানসভার ভোটে জিতেছেন। ২০০০, ২০০৪, ২০০৫ ও ২০০৯ সালে আরজেডি-র টিকিটে। ২০১২ সালে তিনি ঝাড়খণ্ডের মন্ত্রীও হয়েছিলেন। ২০১৪ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত তিনি RJD-র ঝাড়খণ্ড ইউনিটের প্রধান ছিলেন। এরপর বিজেপির টিকিটে কোদেরমা থেকে লোকসভা ভোটে লড়াই করেই জয়লাভ। বিশাল ব্যবধানে বাবুলাল মারাণ্ডিকে হারিয়ে তিনি ‘জায়ান্ট কিলারে’ পরিণত হয়েছেন।

বড় দায়িত্বে আর কারা ?

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী – অমিত শাহ

প্রতিরক্ষামন্ত্রী – রাজনাথ সিংহ

কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহণমন্ত্রী- নিতিন গডকড়ী

বিদেশমন্ত্রী- এস জয়শঙ্কর

কেন্দ্রীয় বিদ্যুৎ-নগরোন্নয়ন মন্ত্রী- মনোহরলাল খট্টর

কেন্দ্রীয় ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প মন্ত্রকের দায়িত্বে জিতনরাম মাঝি

ফের কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী- নির্মলা সীতারমন

কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিংহ চৌহান

অশ্বিনী বৈষ্ণবের হাতেই রেলমন্ত্রক। রেলের সঙ্গে তথ্য সম্প্রচারমন্ত্রকের দায়িত্বেও।

কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রীই রইলেন ধর্মেন্দ্র প্রধান।

(Feed Source: abplive.com)